2পাহাড়ি-বাঙালি দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হওয়ায় রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। এছাড়া লংগদুর টিনটিলায় পাহাড়ি চাকমা-বৌদ্ধদের ঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

গত বৃহস্পতিবার লংগদু উপজেলা থেকে ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেলের চালক ও স্থানীয় সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন দুইজন যাত্রী নিয়ে দীঘিনালার উদ্দেশে রওনা হয়। 1কিন্তু দুপুরের পর দীঘিনালার চারমাইল এলাকায় তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় এক স্থানীয়। পরে সন্ধ্যায় ফেসবুকে তার লাশের ছবি দেখে শনাক্ত করেন নিহতের পরিবারের সদস্য ও বন্ধুরা। শুক্রবার সকালে নয়নের লাশ লংগদুতে তার গ্রামের বাড়ি বাইট্টাপাড়া আনা হয়। সেখান থেকে লংগদুবাসীর ব্যানারে কয়েক হাজার বাঙালির একটি বিশাল শোক মিছিল বার হয়। ওই মিছিল থেকেই প্রধান সড়কের পাশের লংগদু উপজেলা জনসংহতি সমিতির কার্যালয়সহ আশপাশের পাহাড়িদের বাড়িঘরে ব্যাপক অগ্নিসংযোগ শুরু হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পাহাড়ি অধ্যুষিত তিনটিলা পাড়ায় ব্যাপক অগ্নিসংযোগ করা হয়। ঘটনাস্থলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আইনশৃঙ্খ রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

তিনটিলা এলাকার বাসিন্দা ও উপজেলা জনসংহতি সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনিশংকর চাকমা বলেন, “আমাদের পাড়ার একটি ঘরও অবশিষ্ট নেই। প্রায় দুই শতাধিক বাড়িঘর সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। ” তিনি3 বলেন, “এ হত্যার ঘটনায় তো আমাদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই, আমরা তো কিছুই জানি না, তবু কেন আমাদের বাড়িঘর আগুনে পোড়ানো হলো জানি না। ” তিনি কাঁদতে বলেন, “১৯৮৯ সালে একবার নিঃস্ব হয়েছিলাম আগুনে, আবার নিঃস্ব হলাম। ” তিনিসহ অসংখ্য মানুষ স্থানীয় বনবিহারে আশ্রয় নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

লংগদু উপজেলা সমঅধিকার আন্দোলনের সভাপতি খলিলুর রহমান বলেন, ‘আমরা লংগদুবাসীর ব্যানারে সর্বদলীয়ভাবে নয়নের লাশ গোসল শেষে জানাজার জন্য উপজেলা সদরের মাঠের দিকে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ খবর আসে, ঝর্ণাটিলায় একটি বাঙালি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এ খবর আসায় মিছিলের উত্তেজিত লোকজন জনসংহতি সমিতির কার্যালয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে, পরে পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।’

লংগদু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ায় উপজেলা প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেছে। এখনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে রয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।