1212ভালবেসে বিয়ে করেও ঘর বাঁধার ক্ষেত্রে ধর্মীয় পরিচয় বাধা হয়ে দেখা দেওয়ায় আত্মহত্যার হুমকি দিল সদ্য বিবাহিত যুবক-যুবতী। গত ১৯শে মে, সোমবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁ জয়পুর এলাকায়।দুজনের বিপদের কথা শুনে যুবক-যুবতীকে পুলিশের হাতে তুলে দেন স্থানীয় প্রতিবেশীরা।
পুলিশ সূত্রের খবর ওই দুজনের নাম আসমা সেখ (১৮)ও সুব্রত বিশ্বাস (২১)। দীর্ঘ দুবছর ধরে তাদের ভালবাসার সম্পর্ক। বাড়ির আত্মীয়রা সে কথা আগে থেকে জানলেও তা মেনে নেয়নি। কিন্তু ভালবাসাকে বাজি রেখে সোমবার বাবা মায়ের অমতে হিন্দু মতেই মন্দিরে গিয়ে মন্ত্র পরে বিয়ে হয় তাদের। এরপরই শুরু হয় বিপত্তি। বিয়ের খবর পাওয়ার পর থেকে সুব্রত বিশ্বাসকে খুনের হুমকি দেন আসমার আত্মীয়রা। এমনকি আসমাকে তুলে আনতেও লোক পাঠান আসমার বাবা ফরিয়াদ সেখ। আতঙ্কে স্থানীয় প্রতিবেশীদের খবর দেন সুব্রত । এরপর প্রতিবেশীরা এলে দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ।
স্থানীয় কাউন্সিলারের পরামর্শ নিয়ে বনগাঁ থানায় গিয়ে আসমা ও সুব্রত পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। অন্য ধর্ম হলেও ভালবাসাকে মিথ্যে হতে দিতে চান না আসমা সেখ। তিনি বলেন ধর্মের জন্য যদি আমাদের বিয়েতে বাধার সৃষ্টি হয় তাহলে সেই ধর্মকে আমরা মানিনা। আমাদের এই সম্পর্ক নিয়ে অনেক বাধাও এসেছে। আজ সব কিছু উপেক্ষা করে সুব্রতকে বিয়ে করেছি। এরপর যদি কেউ বাঁধার সৃষ্টি করে দুজনেই এক সঙ্গে আত্মহত্যা করব।